মুখরোচক স্বাদে কাঠবাদাম

বন্ধুদের আড্ডায়, প্রিয় মানুষের সাথে কাটানো বিকেলে অথবা ঘরোয়া কোন ডেজার্টে, একমুঠো বাদামের চেয়ে কাঙ্ক্ষিত কিছু হতে পারে না৷ 
ভরপুর পুষ্টিগুণ এবং সহজলভ্যতার কারণে বাঙালীর আবেগের বেশখানিকটা জায়গা জুড়ে রয়েছে বাদামের উপস্থিতি। আমাদের দেশে বাদামের বেশ কয়েকটি ধরণ রয়েছে। এর মধ্যে কাজু বাদাম, কাঠবাদাম,  পেস্তা বাদাম ইত্যাদি অন্যতম। 
কাঠবাদামের ইতিকথা
কাঠবাদাম গাছের উৎপত্তি কোথায় সেটা এখনো অজানা। তবে উষ্ণ অঞ্চলে বেশী জন্মে বলে আফ্রিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়াতে অধিক পাওয়া যায়। যদিও ইদানিংকালে আমেরিকা মহাদেশেও কাঠবাদাম গাছের বিস্তার লক্ষ্যণীয়। 
এই খাদ্যবীজকে সুপার ফুড বলা হয়। আগে কাঠবাদামকে প্রাচুর্য্যের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হত। মানবদেহের পুষ্টি চাহিদা অনেকাংশে পূরণ করতে পারে বলে কাঠবাদাম সমগ্র বিশ্বেই জনপ্রিয়।  
কাঠবাদামের উপকারিতা
কাঠবাদামের নানাবিধ উপকারিতার কথা এক বর্ণনায় শেষ করা কষ্টকর হবে। প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেলসের উপস্থিতি থাকার কারণে মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান এতে সহজেই পাওয়া যায়। আসুন জেনে নেই কাঠবাদামের তেমনই কিছু উপকারিতার কথা।
  • কাঠবাদামে রয়েছে ওমেগা-৬ ফ্যাটি এসিড, যা হার্টের সুস্থতায় ভূমিকা রাখে। এটি রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল বা এলডিএল কমিয়ে উপকারি  কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়। 
  • হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া সচল রাখতে প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট, পটাশিয়াম, প্রোটিন এবং ম্যাগনেসিয়ামের উপস্থিতি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে লক্ষ্য করা যায় কাঠবাদামে। 
  • কাঠবাদাম মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে মেধাশক্তি বিকাশে ভূমিকা রাখতে সক্ষম। 
  • রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি পেলে ধীরে ধীরে এটি ডায়াবেটিসে রূপ নিতে পারে। শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে অগ্নাশয়ের ইনসুলিন হরমোন সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে কাঠবাদাম রক্তে শর্করার মাত্রা ধরে রাখতে কার্যকরী। 
  • অনেকে স্থুলতার সমস্যায় ভুগে থাকেন। শরীরের অতিরিক্ত ওজন অনেক ধরণের রোগের মূল কারণ হিসেবে দেখা দিতে পারে। কিন্তু আপনি যদি নিয়মিত কাঠবাদাম খান তবে অতিরিক্ত ওজন কমানোর ক্ষেত্রে এটি সাহায্য করতে পারে। 
  •  কাঠবাদামের রয়েছে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে। এতে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে বহুগুণে। 
  • নারীদের জন্য মেনোপজ একটি স্বাভাবিক শরীরবৃত্তীয় অবস্থা যা মধ্যবয়সের শেষদিকে দেখা দেয়। এমন সময় কাঠবাদামে উপস্থিত ক্যালসিয়াম দেহের জন্য উপকারী। 
  • ত্বকের সুস্থতা এবং সৌন্দর্যের জন্য অনেক ধরনের রূপচর্চার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কিন্তু কাঠবাদামে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের উপাদান প্রয়োজনীয় পুষ্টি যা ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে পারে। 
  • পৃথিবীতে ভয়াবহতম রোগ গুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ক্যান্সার। কাঠ বাদাম ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তাই নিয়মিত কাঠবাদাম খেলে আপনি ক্যান্সারের ঝুঁকি থাকে মুক্ত থাকবেন অনেকটাই। 
  •  শরীরের ক্লান্তি বোধ হলে অথবা অধিক পরিশ্রমের পরে এক মুঠো কাঠবাদাম আপনাকে চাঙ্গা করে তুলতে পারে নিমিষেই। এতে উপস্থিত শর্করা, প্রোটিন, ফাইবার এবং মিনারেলস দেহের জন্য দরকারী।
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে নিয়মিত একমুঠো কাঠবাদাম, ব্যাস। 
  • চুলের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য বিভিন্ন ধরণের পদ্ধতি অবলম্বন করতে দেখা যায়। নিয়মিত বাদাম খাবার ফলে প্রাকৃতিকভাবেই চুলের গোড়া শক্ত হয় এবং উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। 
কাঠবাদামের পুষ্টিগুণ 
পুষ্টিগুণে ভরপুর কাঠবাদাম স্বাদের জন্যেও পৃথিবীব্যাপী জনপ্রিয়। প্রতিদিনের খাবারে একমুঠো কাঠবাদাম পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে পারে অনেকাংশে। 
এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেলস, যেমন; কপার, জিংক, সেলেনিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস ইত্যাদি। এছাড়াও পলিআনস্যাচুরেটেড অয়েল, মনোয়ানস্যাচুরেটেড অয়েল, এবং ফলিক এসিডের উপস্থিতি রয়েছে কাঠবাদামে। 
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিকারী অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের একটি দারুণ উৎস হতে পারে কাঠবাদাম। 
প্রতি ১০০ গ্রাম কাঠবাদামে উপস্থিত পুষ্টি উপাদান
শর্করা
৫৮৬ ক্যালোরি 
প্রোটিন
২১ গ্রাম
কার্বহাইড্রেড
২২ গ্রাম
সুগার
৪ গ্রাম
ফ্যাট
৪৬ গ্রাম
স্যাচুরেটেড ফ্যাট
৪ গ্রাম
কোলেস্টেরল
০ গ্রাম
সোডিয়াম
১ মিগ্রা
ডায়েটারি ফাইবার
১২ গ্রাম
একজন পূর্ণবয়স্ক সুস্থ মানুষের দৈনিক ২০০০ ক্যালোরি শক্তির দরকার হয়। 

এমন হাজারো উপকারিতার জন্য কাঠবাদাম শুধু সময় কাটানোর অনুষঙ্গ হিসেবে নয়, এটিকে রাখা উচিত প্রতিদিনের খাদ্যাভাসে।

 

Please follow and like us: